a
Sorry, no posts matched your criteria.
My Bookmarks
  • No bookmark found
Image Alt
 • চুলের যত্ন  • জেনে নিন মাথার ত্বকে চুলকানির সমস্যার কারণ ও সমাধানগুলো

জেনে নিন মাথার ত্বকে চুলকানির সমস্যার কারণ ও সমাধানগুলো

Bookmark CFL(0)

মাথার ত্বকের চুলকানি বা ইচি স্ক্যাল্প হতে পারে বিরক্তিকর ও অসুবিধার কারণ। বিশেষ করে যখন আপনি বাইরে আছেন, কিংবা কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ফোকাস করার চেষ্টা করছেন, চুলকানিযুক্ত বা ইচি স্ক্যাল্প হয়ে উঠতে পারে সেই কাজে বাধার কারণ। এই সমস্যার প্রধান কারণ হিসেবে সাধারণত খুশকিকে দায়ী করা হয়ে থাকলেও, এর পেছনে থাকতে পারে আরও নানাবিধ কারণ।

 

ইচি স্ক্যাল্প, চর্মরোগ বিশেষজ্ঞদের ভাষায় যাকে ‘স্ক্যাল্প প্রুরিটাস’-ও বলা হয়, মাঝে মাঝে হতে পারে বড় কোন সমস্যার লক্ষণ। এই চুলকানির পেছনে সাধারণত খুশকি বা একজিমা (সেবোরিক ডার্মাটাইটিস) এর ভূমিকা থেকে থাকে। এদের উভয়ই স্ক্যাল্পকে ফ্লেকি বা স্তরযুক্ত করে তোলার পাশাপাশি স্ক্যাল্পে ডেড স্কিন, লালচে ভাব এবং চুলকানি সৃষ্টি করতে পারে। ত্বকের আরও একটি সমস্যা যা আপনার মাথার ত্বকে চুলকানির কারণ হতে পারে – এর নাম সোরিয়াসিস। সোরিয়াসিস একটি ত্বকের প্রদাহজনিত সমস্যা যা জিনগত কারণে ঘটে থাকে। এই সমস্যা দেখা দিলে মাথার ত্বকের কোষগুলোর পরিমাণ সাধারণ অবস্থার চেয়ে দশগুণ দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকে। যখন এই কোষগুলো মরে যায়, তখন তারা স্ক্যাল্পে উঁচু ও লাল ক্ষত রেখে যায়, যেগুলো সাদা দানায় ঢাকা থাকে। এই সমস্যার প্রধান লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে রুপালি রঙের দানা, স্কেলিং স্পট, শুষ্ক, ফাটলযুক্ত ত্বক, চুলকানি, জ্বালাপোড়া, ঘা ইত্যাদি। এছাড়াও ক্ষতগুলোর উপরের শুকনো অংশ তূলে ফেললে সেখান থেকে রক্তপাতও হতে পারে।

 

চলুন জেনে নেওয়া যাক মাথার ত্বকের চুলকানি বা ইচি স্ক্যাল্পের পেছনের প্রধান কারণগুলো সম্পর্কে।

 

ইচি স্ক্যাল্পের কারণসমূহ

 

খুশকি –

খুশকি আপনার ত্বককে শুষ্ক করে তুলে সেখানে চুলকানির সৃষ্টি করতে পারে। তাই আপনি যদি চুল বা জামাকাপড়ে ক্ষুদ্র দানা দেখতে পান ও স্ক্যাল্পে চুলকানির সমস্যায় ভুগতে থাকেন, তবে এর পেছনের প্রধান কারণ হতে পারে খুশকি

শ্যাম্পুর অবশিষ্টাংশ –

চুল ধোয়ার সময় ঠিকমতো শ্যাম্পু ধুয়ে না ফেললে ইচি স্ক্যাল্প সমস্যা দেখা দিতে পারে

উকুন –

ইচি স্ক্যাল্পের সর্বাধিক প্রচলিত কারণগুলোর মধ্যে একটি হলো উকুন। এগুলো আপনার মাথার ত্বকে প্রদাহজনক সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে

হিউম্যান ইচ মাইট –

এটি এমন একটি কীট যা আপনার মাথার ত্বকে চুলকানির কারণ হতে পারে। যদি এই মাইটগুলি আপনার মাথার ত্বকের ভেতরে প্রবেশ করে তবে, আপনি তীব্র চুলকানি অনুভব করবেন

রিংওয়ার্ম –

এই সমস্যাটি ছত্রাকের কারণে ঘটে থাকে। আপনার মাথার ত্বকে যদি রিংওয়ার্ম থাকে, তবে আপনি স্ক্যাল্পে লাল এবং তীব্র চুলকানিযুক্ত ফুসকুড়ির সম্মুখীন হতে পারেন

অ্যাটোপিক ডার্মাটাইটিস –

এটি স্কিন একজিমার একটি রূপ যা আপনার মাথার ত্বকে নিজেই প্রকাশ পেতে পারে এবং চুলকানির কারণ হতে পারে

অন্যান্য কারণ –

দুশ্চিন্তা, স্ট্রেস, খাদ্যাভ্যাস ইত্যাদিও ইচি স্ক্যাল্পের কারণ হতে পারে

ইচি স্ক্যাল্পের সমাধানে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপাদানের ব্যবহার হতে পারে একটি দারুণ সমাধান। ইচি স্ক্যাল্পের জন্য নারিকেল তেল অন্যতম প্রধান একটি প্রাকৃতিক সমাধান এবং এই আর্টিকেলে আমরা ইচি স্ক্যাল্পের জন্য নারিকেল তেলের উপকারিতা এবং এটি কীভাবে ব্যবহার করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা করব। 

 

নারিকেল তেলের পাশাপাশি, আপনি বেকিং সোডা, অলিভ অয়েল কিংবা টি ট্রি অয়েলকেও ব্যবহার করতে পারেন ইচি স্ক্যাল্পের প্রাকৃতিক সমাধান হিসেবে।

স্ক্যাল্পে চুলকানির প্রাকৃতিক চিকিৎসা হিসেবে নারিকেল তেল

 

আপনার স্ক্যাল্প অতিরিক্ত শুষ্ক হয়ে গেলে আপনি চুলকানির সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন। তাই এই অবস্থায় আপনাকে অবশ্যই আপনার চুলকে ময়েশ্চারাইজ করতে হবে। আর এজন্যই নারিকেল তেল এর হাইড্রেটিং গুণাবলির কারণে ইচি স্ক্যাল্পের সমাধানে দারুণভাবে কাজ করে। নারিকেল তেল চুলে ময়শ্চারের ভারসাম্য ও আর্দ্রতাও বজায় রাখতে পারে। নারিকেল তেলের নানা প্রাকৃতিক গুনাগুণের সাহায্যে আপনি ঘরে বসেই ইচি স্ক্যাল্পের সমধান করে ফেলতে পারেন। এর অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্যগুলো স্ক্যাল্প থেকে চুলকানির উদ্রেককারী উপয়াদানসমূহ দূর করে ও আরাম দেয়। 

 

এছাড়াও, নারিকেল তেলে আছে লরিক অ্যাসিড, যার রয়েছে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য। এটি ত্বককে নারিকেল তেলের গুনাগুণ সঠিকভাবে শুষে নিতে সহায়তা করে। ফলস্বরূপ, নারিকেল তেলের প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যগুলি আপনার স্ক্যাল্পের নীচেও পৌঁছে যেতে পারে। নারিকেল তেল সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতেও সহায়তা করে। আপনার মাথার ত্বকে চুলকানি অনুভব করলে আপনি সহজেই প্রি-শ্যাম্পু হিসাবে সরাসরি স্ক্যাল্পে অল্প পরিমাণ নারিকেল তেল ম্যাসাজ করে নিতে পারেন।

 

ইচি স্ক্যাল্পের জন্য নারিকেল তেলের ব্যবহার

 

ইচি স্ক্যাল্পের সমধানে নারিকেল তেল ব্যবহৃত হতে পারে নানা পদ্ধতিতে। নারিকেল তেলের বহুমুখী গুণের কারণে আপনি এটিকে কন্ডিশনার, প্রি-শ্যাম্পু ট্রিটমেন্ট বা হেয়ার মাস্ক হিসাবেও ব্যবহার করতে পারেন। ঘরে বসে মাথার ত্বকের চুলকানির প্রতিকার হিসাবে আমরা কীভাবে নারিকেল তেল ব্যবহার করতে পারি, চলুন সে সম্পর্কে এখন কথা বলা যাক।

  • একটি ছোট বাটিতে দুই টেবিল চামচ নারিকেল তেল হালকা গরম করুন
  • আপনার জটছাড়ানো, তোয়ালে দিয়ে শুকানো চুলে তেলটি প্রয়োগ করুন। আপনি চাইলে একেবারে শুকনো চুলেও এটি ব্যবহার করতে পারেন
  • প্রয়োগের আগে চুলের ক্লিপ বা স্ক্রাঞ্চিসের সাহায্যে আপনার চুলকে দু’টি অংশে বিভক্ত করুন। এটি নারিকেল তেলের সঠিক বিতরণে সহায়তা করে
  • আপনার মাথার ত্বকে আঙ্গুলের সাহায্যে নারিকেল তেল ম্যাসাজ করুন
  • আপনার চুলের দৈর্ঘ্য বরাবর  নারিকেল তেল দিন। চুলের আগার দিকে এসে শান্তভাবে ম্যাসাজ করুন
  • কমপক্ষে ৩০ মিনিট আপনার মাথার চারপাশে একটি সুতির কাপড় জড়িয়ে রাখুন
  • আপনার রেগুলার শ্যাম্পু দিয়ে এটি ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন
  • সপ্তাহে দু’বার এই প্রক্রিয়াটি পুনরাবৃত্তি করুন

আপনি চাইলে সহজেই নারিকেল তেলের সাথে ইউক্যালিপটাস অয়েল, লেমনগ্রাস অয়েল এবং টি ট্রী অয়েল ইত্যাদির মতো এসেনশিয়াল অয়েল মিশ্রিত করতে পারেন, যা বাহক হিসাবে কাজ করে এবং আপনার মাথার ত্বকে সঠিক পরিমাণে পুষ্টি সরবরাহ করতে পারে। এই তেলগুলির মধ্যে কয়েকটি ফ্লেকি স্ক্যাল্পকে ময়েশ্চারাইজ করতেও সাহায্য করতে পারে। অন্যদিকে,কয়েকটিতে রয়েছে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল বা অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য, যা স্ক্যাল্পের মূল সমস্যার সমাধান করতে পারে। আপনি যদি আপনার দ্বিসাপ্তাহিক থেরাপিতে নারিকেল তেলের সাথে এই তেলগুলো মিশ্রিত করেন, তবে আপনি আরও কার্যকর ফলাফল পাবেন।

 

চুলের নানা সমস্যার মধ্যে মাথ্রা ত্বকের চুলকানি বা ইচি স্ক্যাল্প হয়ে পারে খুবই বিরক্তিকর। সুতরাং, যদি আপনি ইচি স্ক্যাল্পের জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকার খুঁজে থাকেন, আপনি আপনার সমাধান পেয়ে গেছেন – নারিকেল তেল। এর অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং ময়েশ্চারাইজিং বেনিফিটগুলোর পাশাপাশি এটি মাথার ত্বকের চুলকানির ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবে দারুণ কাজ করে। এ ছাড়া নারকেল তেল আপনার চুলকে স্বাস্থ্যকর, শক্তিশালী এবং লাস্যময় করে তুলতেও সহায়তা করে।

 

সাধারণ জিজ্ঞাসা

মাথার ত্বকের চুলকানির জন্য কি নারিকেল তেল কার্যকর?

মাথার ত্বকের পরিচর্যায় নারিকেল তেল যুগ যুগ ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে এবং মাথার ত্বকের চুলকানির ক্ষেত্রেও এটি দারুণভাবে কাজ করে। 

এটি স্ক্যাল্পকে ময়েশ্চারাইজ করে এবং এর অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলো সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে। এটি অ্যাটোপিক ডার্মাটাইটিস রোধেও কাজ করে থাকে।

 

আমার স্ক্যাল্পে তীব্র চুলকানি অনুভূত হচ্ছে কেন?

ইচি স্ক্যাল্পের পেছনে নানা ধরনের কারণ থাকতে পারে। এর মধ্যে খুশকি, উকুন, স্ট্রেস, দুশ্চিন্তা, অনিয়মিত খ্যাদ্যাভ্যাস ইত্যাদি অন্যতম। এর প্রতিকারে আপনি চাইলে নারিকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন, কারণ এতে আছে নানা প্রাকৃতিক গুণাবলী।

 

ইচি স্ক্যাল্পের জন্য নারিকেল তেল কীভাবে ব্যবহার করবো?

ইচি স্ক্যাল্প প্রতিরোধে আপনি অল্প পরিমাণ নারিকেল তেল হালকা গরম করে সরাসরি ব্যবহার করতে পারেন। চুলের স্ক্যাল্পে নারিকেল তেল ম্যাসাজ করে ৩০ মিনিট রেখে দিন। সবশেষে আপনার রেগুলার শ্যাম্পু দিয়ে ভালোমত ধুয়ে ফেলুন।

 

সূত্র –

https://www.femina.in/beauty/hair/home-remedies-for-an-itchy-scalp-121255.html

https://food.ndtv.com/beauty/5-simple-home-remedies-for-itchy-scalp-1804759

https://www.medicalnewstoday.com/articles/home-remedies-for-a-dry-scalp#coconut-oil

https://www.luxyhair.com/blogs/hair-blog/remedies-for-itchy-dry-scalp

https://www.aad.org/public/everyday-care/itchy-skin/itch-relief/relieve-scalp-itch

https://www.medicinenet.com/itchy_scalp/article.htm

https://www.drbronner.com/all-one-blog/2017/10/coconut-oil-hair-scalp/

https://www.getroman.com/health-guide/coconut-oil-for-dandruff/

POST A COMMENT