a
Sorry, no posts matched your criteria.
My Bookmarks
  • No bookmark found
Image Alt
 • ত্বকের যত্ন  • তৈলাক্ত ত্বকের জন্য শীতকালীন ত্বক পরিচর্যা রুটিন
oily skin care in winter

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য শীতকালীন ত্বক পরিচর্যা রুটিন

Bookmark CFL(0)
  • শীতের দিনে তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন কীভাবে নিতে হবে এটা অনেকেরই জিজ্ঞাসা। 
  • শীতকালে তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে রয়েছে ক্লিনজিং, টোনিং, ময়েশ্চারাইজিং সহ নানারকম স্কিন কেয়ার পদ্ধতি। 
  • শীতে নাইট স্কিন কেয়ার রুটিনে হাইড্রেটিং মাস্ক ও নাইট ক্রিম খুবই জরুরি দুইটি উপাদান। 

 

শীতের মৌসুম আসার সাথে সাথেই আমরা ত্বকের আর্দ্রতা হারাতে থাকি, তাই সে সময় আমাদের প্রয়োজন হয় ত্বক পরিচর্যার জন্য প্রতিদিনের একটি স্কিন কেয়ার রুটিন। সব ধরনের ত্বকের জন্যই চাই শীতকালে বিশেষ ত্বক পরিচর্যা। আপনার ত্বক যদি তৈলাক্ত হয় তবে শীতকালে আপনার ত্বকে কোনো সমস্যা হবে না এই ভেবে খুশি হবেন না কারণ শীতকালীন শুষ্কতা আপনার তৈলাক্ত ত্বকের জন্যেও ক্ষতিকর। আপনার ত্বকের অয়েল গ্ল্যান্ড কিন্তু শীতকালেও অতিরিক্ত তেল উৎপাদন বন্ধ করবে না। কাজেই প্রতিদিন যেসব পণ্য ত্বকের যত্নে ব্যবহার করতেন তা বন্ধ করা যাবে না। তবে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য স্কিনে চিটচিটে ভাব তৈরি করে এমন ধরনের পণ্য ব্যবহার না করে লাইটওয়েট পণ্য ব্যবহার করুন। এতে করে আপনার স্কিন শীতের পরের আবহাওয়াতেও ভালো থাকবে। 

 

শীতে তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে- 

 

মুখে চিটচিটে আর তেলতেলে ভাব কারোই ভালো লাগে না। তাই আপনার ত্বকে অয়েল কন্ট্রোলের পাশাপাশি পানির পরিমাণ বজায় আছে কি না সেটা খেয়াল রাখতে হবে। শীতকালে আপনার ত্বক ডিহাইড্রেট হয়ে যেতে পারে এবং সেই সাথে মুখ ধোয়ার ফলে ত্বকে চুলকানি হতে পারে, ত্বক নিস্তেজও দেখাতে পারে। কাজেই তৈলাক্ত ত্বকের জন্য আপনাকে অয়েল ফ্রি পণ্য ব্যবহার করতে হবে যাতে করে আপনার ত্বকে প্রাকৃতিক তেলের পরিমাণ বজায় থাকে। 

 

শীতকালে তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে যা যা করবেন সেই পদ্ধতিগুলো দেয়া হল। 

 

শীতকালে ডে স্কিন কেয়ার রুটিন- 

 

ক্লিনজিং- ত্বকের সাথে মানানসই ক্লিনজার দিয়ে দিনে দুইবার ত্বক পরিষ্কার করুন। ক্লিনজার বেছে নেয়ার ক্ষেত্রে খেয়াল রাখুন ক্লিনজারটি যেন আপনার ত্বকের ময়েশ্চার আটকে রাখে এবং অতিরিক্ত তেল দূর করতে সাহায্য করে। তৈলাক্ত ও অ্যাকনে প্রোন ত্বকের জন্য ক্লিনজিং খুবই জরুরি কারণ নিয়মিত ক্লিনজিং ত্বকের পি এইচ ব্যালেন্স রক্ষা করে। সেই সাথে ত্বক সব সময় কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। 

 

টোনিং- যেসব টোনার ত্বকের পোরস টাইট করে ও অতিরিক্ত সেবাম নিয়ন্ত্রণ করে সেই ধরনের টোনার ব্যবহার করুন। টোনার অ্যালকোহল ফ্রি কি না সেটিও খেয়াল করুন। যেসব টোনার সুগন্ধযুক্ত বা এসেনশিয়াল অয়েলযুক্ত সেসব টোনারও ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। টোনার পছন্দ করার সময় এটি হাইড্রেটিং কি না লক্ষ্য করুন। টোনার আপনার ত্বককে যত হাইড্রেট করবে অন্য পণ্যও আপনার ত্বকে তত সহজে প্রবেশ করতে পারবে। 

 

 

সিরাম ব্যবহার- তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারী অনেকেই মনে করেন তাদের ত্বকে সিরাম ব্যবহারের প্রয়োজন নেই। এটা একদম ভ্রান্ত ধারণা। সিরাম ত্বকের প্রাকৃতিক তেল উৎপাদন স্বাভাবিক রাখে এবং ব্লেমিশ দূর করে। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য তাই সিরাম ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ। পেপারমিন্ট, টি ট্রি, ল্যাভেন্ডার জাতীয় উপাদানে তৈরি সিরাম তৈলাক্ত ত্বকের জন্য বেশ উপকারি। 

 

ময়েশ্চারাইজিনং- শীতে ত্বকের যত্নের রুটিনে ময়েশ্চারাইজার একটি অনিবার্য অংশ। তৈলাক্ত ত্বকে শীতে ব্যবহার করার জন্য অনেক ধরনের ময়েশ্চারাইজার রয়েছে। হয়তো আপনার ত্বকে অতিরিক্ত তেলের কারণে আপনার মনে হতে পারে ময়েশ্চারাইজারের প্রয়োজন নেই। কিন্তু স্কিন কেয়ার রুটিনে এটা কখনোই বাদ দেবেন না। বরং এমন ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন যা চিটচিটে নয়, অয়েল ফ্রি এবং যা ত্বকের পি এইচ ব্যালেন্স রক্ষা করে ত্বকের প্রাকৃতিক আর্দ্রভাব বজায় রাখতে সহায়তা করে। 

 

সানস্ক্রিনের ব্যবহার-  শীতকাল মানেই যে আকাশে সূর্য নেই এমন কিন্তু নয়।  শীতেও সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি মেঘ ভেদ করে আপনার ত্বকের গভীরে পৌঁছে ত্বকের ক্ষতি সাধন করে। ত্বকে ফাইন লাইনস ও রিংকেলস হতে পারে এ কারণে। তাই গরম কালের মতই শীতেই প্রতদিন সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য জেল বেইজ সানস্ক্রিন ভালো। আপনি চাইলে লাইটওয়েট লোশন বেইজ সানস্ক্রিনও ব্যবহার করতে পারেন। 

 

শীতকালে নাইট স্কিন কেয়ার রুটিন- 

 

মাস্ক ব্যবহার করুন- তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে শীতকালীন স্কিন কেয়ার রুটিনে হাইড্রেটিং মাস্কের উপকারিতা অনেক। এটি ত্বকে অতিরিক্ত তেল উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করে ও ত্বকে পানির পরিমাণ রক্ষা করে। হাইড্রেটিং মাস্ক অ্যাকনে দূর করতে সাহায্য করে। এছারা এটি সারারাত ত্বকে পুষ্টি যোগায় ফলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়। 

 

নাইট ক্রিম ব্যবহার করুন- শীতকালে রাতে প্রতিদিন তৈলাক্ত ত্বকে নাইট ক্রিম ব্যবহার করুন। পুরো মুখে গাদাখানেক ক্রিম মাখবেন না। বরং হালকাভাবে পরিমাণ মত ক্রিম মুখে লাগিয়ে রাখুন। বেশি ভারি জাতীয় ক্রিম অনেক সময় ত্বকে পোরস ব্লক করে দেয়। তাই তৈলাক্ত ত্বকের জন্য তৈরি জেল বেইজ কোনো ক্রিম বা সিরাম ব্যবহার করুন।   

 

শীতকালীন স্কিন কেয়ার রুটিন মেনে চলার উপকারিতা- 

 

শীতে বাইরে শুষ্ক আবহাওয়া ও হিমশীতল বাতাসের পাশাপাশি ঘরে হিটারের বেশি তাপমাত্রার কারণে ত্বক তার স্বাভাবিক আর্দ্রতা হারায় এবং ত্বক থেকে প্রয়োজনীয় প্রাকৃতিক তেলের ভারসাম্যও নষ্ট হয়ে যায়। তাপমাত্রায় এমন ওঠা নামার কারণে ত্বকে লাল লাল ভাব, ইরিটেশনও দেখা দিতে পারে। তাই এ সময় ত্বকে বিশেষভাবে যত্নের ভীষণ প্রয়োজন। 

 

শীতকালে ত্বক শুষ্ক হয়ে তার ইলাসটিসিটি হারায়। তাই এ সময় ত্বকে পানির পরিমাণ বজায় রাখা খুব জরুরি। এমনকি পানির অভাবে আপনার তৈলাক্ত ত্বকেও শুষ্কতা অনুভব করতে পারেন এবং এর ফলে আরো বেশি করে সেবাম তৈরি হতে পারে। তৈলাক্ত ত্বক তৈলাক্ত হয় কারণ এই ধরনের ত্বকে প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত সেবাম তৈরি হয়। শুষ্ক ত্বকের মত অতোটা বিরক্তিকর না হলেও তৈলাক্ত ত্বকেও শীটে সমস্যা দেখা দেয় তাই অন্যান্য ত্বকের মত শীতকালে তৈলাক্ত ত্বকেরও যত্ন নিতে হবে। 

 

শীতে ঠিকমতো স্কিন কেয়ার রুটিন মেনে চললে যে সুবিধাগুলো পাবেন- 

 

  • শীতে শুষ্ক বাতাসের কারনে ত্বকে ইরিটেশন, চুলকানি বা লাল লাল দাগ হতে পারে। স্কিন কেয়ার রুটিন মেনে চললে এই সমস্যাগুলো দূর হয়। 
  • শীতে ময়েশ্চারাইজার নিয়মিত ব্যবহার করলে আপনার ত্বকের কোষ সুস্থ থাকে এবং অন্যান্য পণ্য ব্যবহার করলে সেগুলোও কারযকরভাবে কাজ করতে পারে। 
  • ত্বক থেকে মৃত কোষ দূর করে ও ত্বকে ফ্লেকস ওটা বন্ধ করে। 
  • আপনার ত্বক সুরক্ষিত থাকে। 

 

শীতে আমরা একটু অন্যরকমভাবে ফ্যাহসন করতে পারি। তবে সেই সাথে ত্বকের যত্নও নিতে হবে নিয়মিত। তাহলেই আপনি শীতের আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন। 

সাধারণ প্রশ্ন: 

 

১। ঠান্ডা আবহাওয়া কি তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ভালো? 

 

ঠান্ডা আবহাওয়া ত্বকের জন্য কিছুটা হলেও ভালো। এ সময় রক্ত প্রবাহ কম হওয়ার কারণে ব্লাড ভেসেলগুলোতে লাল লাল ভাব বা প্রদাহ কম হয়। এছাড়া ত্বকে অতিরিক্ত তেল ও সেবাম উৎপন্ন হয়না বলে ব্রেক আউট কম হয়। 

 

২। শীতকালে আমার ত্বক এত তৈলাক্ত থাকে কেন? 

 

আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে অনেক সময় ত্বকে অতিরিক্ত তেল উৎপন্ন হতে পারে। শুষ্ক আবহাওয়ায় অনেক সময় আপনার ত্বক অতিরিক্ত তেল উৎপাদন করে। 

 

৩। শীতকালে আমার ত্বকে তৈলাক্ততা দূর করব কীভাবে? 

 

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ক্লিনজিং ও ময়েশ্চারাইজিং খুব জরুরি। সোপ ফ্রি ক্লিনজার দিয়ে প্রতিদিন দুই বেলা ত্বক পরিষ্কার করলে ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর হবে। এছাড়া অয়েল ফ্রি পণ্য ব্যবহার করলেও ত্বকের তৈলাক্ততা কমবে। 

 

৪। আমার তৈলাক্ত ত্বককে শীতের সমস্যা থেকে কীভাবে সুরক্ষিত রাখবো? 

 

প্রতিদিন মুখ ধুয়ে ফেললে ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর হয়।  এছাড়া ভারি ক্রিম ব্যবহার না করে লাইটওয়েট ক্রিম ব্যবহার করুন। পাশাপাশি অয়েল ফ্রি পণ্য ব্যবহার করুন। 

 

POST A COMMENT